Home / কবুতরের যত্ন / কিভাবে কবুতরকে রেস্ট দিবেন? এসময় আপনার করণীয় কি?
কিভাবে কবুতরকে রেস্ট দিবেন? এসময় আপনার করণীয় কি?
কিভাবে কবুতরকে রেস্ট দিবেন? এসময় আপনার করণীয় কি?

কিভাবে কবুতরকে রেস্ট দিবেন? এসময় আপনার করণীয় কি?

কিভাবে কবুতরকে রেস্ট দিবেন? কখন আপনি কবুতরকে রেস্ট দিবেন? রেস্ট এর সময়ে কি কি করবেন? এসব বিষয় নিয়েই আজকের পোস্টে আলোচনা করবো। আশা করছি সম্পূর্ণ পোস্ট মনোযোগ সহকারে পড়বেন। কবুতরের রেস্ট কি? কবুতরের কি কি সমস্যা হলে কবুতরকে রেস্ট দিতে হয়? এ বিষয় নিয়ে আগের পোস্টে আলোচনা করেছি। বপনি চাইলে সেটও দেখে নিতে পারেন। তাহলে আর কথা না বাড়িয়ে চলুন মূল আলোচনা শুরু করি-



👉 কিভাবে কবুতরকে রেস্ট দিবেন?
হ্যা, যারা কবুতর খাচায় পালন করেন তারা নর মাদী কবুতর দুটি আলাদা আলাদা খাঁচায় রেখে রেস্ট দিতে পারেন। এছাড়াও কবুতর ডিম পাড়ার পড়ে সেই ডিম সরিয়ে নিয়ে সেখানে প্লাস্টিকের ডিম দিয়ে কবুতর বসিয়ে রেখে ও রেস্ট দেয়া যায়। এভাবে কবুতর আলাদা না করে একসাথে রেখে আপনারা রেস্ট দিতে পারেন।

যারা ছেড়ে কবুতর পালেন তাদের জন্য কবুতরকে রেস্ট দেয়ারটা একটু কঠিন। এক্ষেত্রে যে কবুতর দুটিকে আপনি রেস্ট দিতে চাচ্ছেন সেই কবুতরগুলোকে দুটি আলাদা খাঁচায় রেখে রেস্ট দিতে হবে।



👉 কখন আপনি কবুতরকে রেস্ট দিবেন? এখন সেটি আপনাদের বলে দিচ্ছি-
কবুতরের ভালো স্বাস্থ্য এবং কবুতর থেকে ভালো ডিম বাচ্চা পেতে কবুতরকে রেস্ট দিতে হবে। ১ থেকে ২ বার বাচ্চা নেয়ার পর এক জোড়া কবুতর কে অবশ্যই ১০ থেকে ১৫ দিনের জন্য রেস্ট নিতে হবে। এই সময়ে আপনি চাইলে কবুতরের মাসিক কোর্স করিয়ে নিতে পারেন। সবথেকে ভালো হয় প্রত্যেকবার বাচ্চা নেয়ার পরে কবুতরকে রেস্ট দিলে। এতে কবুতরের ফিটনেস ভালো থাকবে। এমন অনেকেই আছে যারা ভালো মানের বাচ্চা নেয়ার জন্য বছরে মাত্র দুইবার কবুতর দিয়ে ব্রিডিং করায়। বাকি সময় কবুতর রেস্টে রাখে।



👉রেস্ট এর সময়ে কি কি করবেন?
হ্যা, কবুতরকে যে সমস্যার কারণে আপনি রেস্ট দিচ্ছেন তা সমাধানের ব্যবস্থা করতে হবে এই সময়ে। বেশিরভাগ সময়ই ডিম এবং বাচ্চার সমস্যার কারণে রেস্ট দেয়া হয় তাই এই সমস্যার জন্য কবুতরকে কিছু ওষুধ প্রয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে।

🔶প্রথমত- ভালো খাবার দিতে হবে। কবুতরকে শর্করা প্রোটিন এবং তেল জাতীয় খাবারের মিশ্রণে একটি সুষম খাবার দিতে হবে।



🔶দ্বিতীয়ত- সপ্তাহে দুইদিন গ্রিট দিতে হবে এবং এর সাথে অল্প পরিমাণ লবণ মিক্স করে দিবেন।

🔶তৃতীয়ত- নিয়মিত গোসল এর ব্যবস্থা করতে হবে।

🔶চতুর্থত- মাসিক কোর্স করাতে হবে। আপনাকে অবশ্যই ভিটামিন এ, ডি, কে, ই, বি এবং ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করতে হবে। মূলত এসব ভিটামিনের অভাবে কবুতরের ডিমের ভিতর বাচ্চা মারা যায় বা ডিম ঠিক মতো জমে না।



আজকে এ পর্যন্তই সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং নিজ কবুতরের খেয়াল রাখবেন। কবুতরের রেস্ট নিয়ে আরো কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন।

এই পোস্ট আপনাদের উপকারে আসলে একটি লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। ধন্যবাদ...

Check Also

কবুতরের মাসিক কোর্স করান সঠিক নিয়মে

কবুতরের মাসিক কোর্স করান সঠিক নিয়মে

কবুতরকে রোগের হাত থেকে বাঁচাতে এবং কবুতরের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে এবং কবুতর থেকে ভালো ডিম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *