শুক্রবার , সেপ্টেম্বর ২৪ ২০২১
Home / কবুতরের যত্ন / কবুতরের ঘর থেকে তেলাপোকা দূর করার ৩ টি কার্যকরী উপায়
কবুতরের ঘর থেকে তেলাপোকা দূর করার ৩ টি কার্যকরী উপায়
কবুতরের ঘর থেকে তেলাপোকা দূর করার ৩ টি কার্যকরী উপায়

কবুতরের ঘর থেকে তেলাপোকা দূর করার ৩ টি কার্যকরী উপায়

অতিকায় হস্তি লোপ পাইয়াছে কিন্তু তেলাপোকা টিকিয়া আছে”-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর এ কথাটি যেন সর্ব যুগের সর্ব সময়ের সর্ব কালের এক অমুল্য কথা। কারণ তেলাপোকা এমন একটা প্রাণী যে সময় সময়ের সব সব জায়গাতেই অবস্থান করে।

টয়লেটের কমড থেকে শুরু করে, বেসিন, রান্নাঘরের সিঙ্ক, কিচেন ক্যাবিনেট এমন কোন জায়গা পাওয়া যায় না যেখানে এদের আনাগোনা নেই। অনেকেই আছেন যারা সামনে বাঘ আসলে হয়ত লাঠি হাতে তেড়ে যেতে ভয় পাবেন না। কিন্তু এই প্রাণীটিকে দেখলেই কেন যেন ভয়ে চিৎকার চ্যাঁচামেচি শুরু হয়ে যায়।

আর এই প্রানিটিকে অনেক মানুষের মত আমিও কেন জানি ভয় পাই। যদিও এর কারণ আছে। ছোট বেলায় আমার বড় বোনকে দেখতাম রূপ চর্চা করতে। আর সেই চর্চা তে কোন কিছুই যেন বাদ পড়ত না। দুধের সড়, হলুদ, মুসুর ডাল বাঁটা, মধু ইত্যাদি আর যে কত কি তার আর নাই বা বললাম।

তো একবার এ রকম সে চর্চা করে রাতে ঘুমিয়ে ছিল হাত ভাল করে না ধুয়ে, সকালে উঠে সেই তার চিৎকার চেচামেচি…কি হয়েছে জানা গেল রাতে তেলাপোকা তার হাতের আঙ্গুলের আগার চামড়া গুলো কুরেকুরে খেয়ে ফেলেছে। সেই যে মনে ভয় ঢুকল …আজও সেই ভয় তাড়া করে ফেরে মনের মধ্যে। আমি ও আমার সব ভাইদের।

সেই সময় রাতের বেলা খেতে বসে বিদ্যুৎ চলে গেলে ভাইদের মধ্যে ভাতের থালি নিয়ে দৌড়া দৌড়ীর হিড়িক পড়ে যেত কে কার আগে ঘর থেকে পালাবে। আজও তেলে পোকা গায়ে বসলে বা দেখলে গা রি রি করে উঠে ঘেন্না ও ভয়ে। যদিও শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর কথা শুধু যে তেলাপোকাকেই বুঝিয়েছে তা নয়, ইদানিং কেন যেন, এই প্রাণীটির সাথে কবুতর সেক্টরের কিছু লোকের দারুন মিল পাওয়া যাচ্ছে। যাদের বিচরণ সব জায়গাতেই অবাধে।

যাইহোক অন্য এক সময় হয় তা নিয়ে কথা বলা যাবে। এই তেলাপোকাকে কিভাবে নিয়ন্ত্রন করবেন? এই পোস্ট তা লিখার জন্য আমাকে বেশ কিছুদিন ধরে কবুতর সেক্টরের এক শুভাকাঙ্ক্ষী Shohan Apurbo ভাই বার বার তাড়া দিতেছিলেন যেন আমি এ সম্পর্কে একটি পোস্ট লিখি। তাকে আসস্থ করলাম এই বলে যে, এর সাথে আরও কিছু যোগ করে আমি লিখব। তিনি আমাকে তেলাপোকা মারার একটি ভাল পদ্ধতি সম্পর্কে তার নিজস্ব অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন।

যদিও এটি উনার মা তার অভিজ্ঞতার আলোকে তাকে উপদেশ দিয়েছিলেন। আর তাতে ভাল কাজ হয়েছিল। তাকে ধন্যবাদ জানাই উৎসাহিত করারা জন্য আর তার মুল্যবান অভিজ্ঞতা শেয়ার করার জন্য ,তারই আলোকে পদ্ধতি নিন্মে পেশ করলামঃ

প্রথম পদ্ধতিঃ
পোড়া তেল, যেটা দিয়ে হোটেলে পুরি, সিঙ্গারা, মোগলাই ইত্যাদি তেলে ভাজা পোড়া করতে করতে এক সময় তেলের রং বদলে গিয়ে কালচে রং এর হয়ে যায়। এই তেল সংগ্রহ করে একটি বাটিতে করে কবুতরের ঘরে যেখানে তেলাপোকা বেশী লুকিয়ে থাকে এবং কবুতর যেন মুখ দিতে না পারে এমন জায়গায় রাখতে হবে । তেল হল তেলাপোকার প্রিয় খাবার। এই তেলের গন্ধে খেতে এসে সব তেলাপোকা এই তলের ভিতর পড়ে মরে থাকবে। এটি একটু ভাল প্রাকৃতিক পদ্ধতি যেটি কোন সংশয় ছাড়াই পালন করা যেতে পারে।

দ্বিতীয় পদ্ধতিঃ
তেজপাতা+শশা কেটে স্লাইস করে বা তার সাথে রসুন এর কোয়া ছিলে যে জায়গায় তেলে পোকার আনাগোনা সেখানে রেখে দিলে এর গন্ধে তেলাপোকারা পালায়।

তৃতীয় পদ্ধতিঃ
কয়েকটি পুদিনা পাতা তেলাপকার চলাচলের জায়গাই বা যে জায়গায় এরা থাকে সেখানে রেখে দিলে এর গন্ধে পালায় বা কিছু পুদিনা পাতা পানিতে হালকা সিদ্ধ করে সেটি যদি স্প্রে করা হয় তাতে ভাল কাজ হয়।
এছাড়াও নেপথলিন/কর্পূর ও দারুচিনির গন্ধ এরা সহ্য করতে পারে না।

এই পোস্ট আপনাদের উপকারে আসলে একটি লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। ধন্যবাদ...

Check Also

গরমে কবুতরের যত্নে ১৩ টি করণীয় কাজ

গরমে কবুতরের যত্নে ১৩ টি করণীয় কাজ

অনেক কবুতর পালক মনে করেন গরমে কবুতরের সমস্যা হয়না, শুধু শীতেই হয়। যা ভুল ধারনা। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *