Home / কবুতরের যত্ন / কবুতরকে গম খাওয়ানোর পরিণতি
কবুতরকে গম খাওয়ানোর পরিণতি
কবুতরকে গম খাওয়ানোর পরিণতি

কবুতরকে গম খাওয়ানোর পরিণতি

আমরা যারা কবুতর পালন করি তারা সকলেই কবুতরকে কম বেশি গম খেতে দেই। কিন্তু আমরা কি কখনো জানার চেস্টা করি আসলে কবুতরকে গম খাওয়ালে কি হয়? অথবা কবুতরকে গম খাওয়ানোর উপকারিতা বা অপকারিতা কি? প্রিয় কবুতর প্রেমি বন্ধুগণ! তাহলে চলুন জেনে নেই কবুতরকে গম খাওয়ানোর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে-

=> কবুতরকে গম খাওয়ানোর উপকারিতা:

★ কবুতরের লিভার ভালো রাখে:
কবুতরের লিভার যদি সুস্থ না থাকে তাহলে হজম না হওয়া থেকে শুরু করে কবুতরের আরও নানান অসুখ হতে পারে। এক্ষেত্রে কবুতরকে গম খাওয়ালে কবুতরের লিভার পুরোপুরি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

★ কবুতরের শরীরকে দূষণ থেকে রক্ষা করে:
গমের মধ্যে থাকা শক্তিশালী এনজাইম এবং বায়ুক্যামিক্যাল, যা দূষিত টক্সিন, ভারী ধাতু, এমনকি রেডিয়েশন থেকেও কবুতরের শরীরকে রক্ষা করে।

★ এ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদান:
গমে থাকে এ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদান। কবুতরের শরীরে বাসা বেধে থাকা সমস্ত ক্ষতিকর ব্যাক্টেরিয়াগুলোকে নির্মূল করার জন্য এটি একটি অদ্বিতীয় উপাদান।




★ কবুতরের হার্ট ভালো রাখে:
গমের মধ্যে থাকা ৭০ শতাংশ ক্লোরোফিল আপনার কবুতরকে একসাথে একাধিক রোগের প্রতিরোধ হিসেবে কাজ করে। এই পরিমাণ ক্লোরোফিল কবুতরের হার্ট ভালো রাখে এবং কবুতরের অন্যান্য সমস্ত শারিরীক সমস্যায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে থাকে।

★ কবুতরের শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব পূরণ করে:
প্রতি ১০০ গ্রাম গমে রয়েছে ৪৮ মিঃগ্রাঃ ক্যালসিয়াম। কবুতরের শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব দূর করতে গমের ভূমিকা রয়েছে অনেক।

★ ভিটামিন বি এর দারুন উৎস:
কবুতরের শরীরে ভিটামিন বি এর অভাব হলে কবুতর বিশেষ করে টাল রোগে আক্রান্ত হয়। এছাড়াও কবুতরের শরীরে অন্যান্য সমস্যা দেখা দেয়। তারমধ্যে অন্যতম হলো কবুতরের মুখে ঘা হওয়া। তাই বলা যায় কবুতরের এসব রোগ প্রতিরোধে কবুতরকে গম খাওয়ানোর ভূমিকা অপরিসীম। গমের মধ্যে রয়েছে শর্করা, লৌহ, ক্যারোটিন, আঁশ, খনিজ পদার্থ ইত্যাদি।

=> কবুতরকে গম খাওয়ানোর অপকারিতা:
কবুতরকে গম খাওয়ানোর অপকারিতার কথা যদি বলতে চাই তাহলে বলতে হবে এর কোনো অপকারিতা নেই। তবে হ্যা, কবুতরকে গম খাওয়ানোর ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কতা অবল্ভণ করতে হবে। যেমন ধরুন- কবুতরকে শুধু গম খাওয়ানো যাবে না, গমের সাথে অন্যান্য খাবারও মিক্স করে দিতে হবে। গম ভালো করে পরিষ্কার করে তারপর কবুতরকে পরিবেশন করতে হবে। অন্যথায় কবুতরের ফুড পয়জনিং হতে পারে।

=> Facebook Page- (এখানে ক্লিক করুন)

=> Youtube Channel- (এখানে ক্লিক করুন)

এই পোস্ট আপনাদের উপকারে আসলে একটি লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন। ধন্যবাদ...

Check Also

কবুতরের হিটস্ট্রোক প্রতিরোধ ও করণীয়

কবুতরের হিটস্ট্রোক প্রতিরোধ ও করণীয়

আসসালামুয়ালাইকুম কবুতর প্রেমি ভাই, বোন এবং বন্ধুগণ! আশা করছি সকলেই মহান আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *